কোভিড মোকাবিলায় অনুদানের নয়া প্ল্যাটফর্ম ফেসবুক, এগিয়ে এলেন মীর-এনা-রূপমরা

Spread the love

দেশের এই সংকটের দিনে কাউকে যেন অভুক্ত না থাকতে হয়। এমন শপথ নিয়েই একজোট হয়েছে দেশবাসী। প্রত্যেকেই নিজের সাধ্যমতো অর্থ দান করছেন। কিংবা দুস্থ পরিবারগুলির মুখে তুলে দিচ্ছেন খাবার। তবে ভারচুয়াল দুনিয়ার অনেক বাসিন্দাই ইচ্ছে থাকলেও কোথায় কীভাবে আর্থিক অনুদান দেবেন, ভেবে পাচ্ছিলেন না। তাঁদের মুশকিল আসান করেছে ফেসবুক। আর জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে মানুষকে সাহায্যের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন বাংলার একঝাঁক তারকা।

সঞ্চালক মীর থেকে অভিনেত্রী এনা সাহা, রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়, মিমি চক্রবর্তী, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, ঋতাভরী চক্রবর্তী, পরিচালক রাজ চক্রবর্তী থেকে গায়ক রূপম ইসলাম- কে নেই সেই তালিকায়। সোশ্যাল মিডিয়ার অতি পরিচিত মুখ বং গাই, স্যান্ডি সাহারাও বাড়িয়ে দিয়েছেন সাহায্যের হাত। প্রিয় তারকাদের দেখানো পথে আপনিও কি হেঁটেছেন? যোগ দিয়েছেন এই মহৎ কর্মযজ্ঞে? যদি এখনও শামিল হয়ে না থাকেন, তাহলে আর ভাবছেন কেন? কোভিড মোকাবিলায় সেই সমস্ত দরিদ্র-অভুক্ত মানুষগুলির মুখে হাসি ফোটাতে পারেন আপনিও।

যাঁরা লকডাউনের মধ্যে নেটদুনিয়ায় দিনের অনেকখানি সময় কাটাচ্ছেন তাঁরা নিশ্চয়ই ফেসবুকের নয়া ফিচারটি আবিষ্কার করে ফেলেছেন। লাইভ চলাকালীনই স্ক্রিনে ভেসে উঠছে একটি ‘ডোনেট’ অপশন। সেখানে গিয়ে কার্ডের মাধ্যমে অনায়াসে পেমেন্ট করে সমাজসেবা করতে পারেন আপনিও। কিন্তু কোথায় যাবে আপনার অর্থ? কীভাবেই তা কাজে লাগানো হবে? এইসব কৌতূহলই দূর করেছেন তারকারা। প্রথমেই বলা যাক মীরের কথা। গিভ ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের হয়ে অর্থ জোগাড়ের দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। ক্যাম্পেনের নাম রেখেছেন মেয়ে মুসকানের নামে। জন্মের পরই ইনকিউবেটরে থাকার জন্য ১৪ দিন পর মেয়েকে কোলে নিতে পেরেছিলেন মীর। হাজার কষ্টেও অদ্ভুত হাসি লক্ষ্য করেছিলেন তার মুখে। তখনই নাম রেখেছিলেন মুসকান। দেশের এই দুর্দিনে ঠিক একইরকম হাসি দেখতে চান গরিব পরিবারগুলির মুখে। তাই এই নামকরণ। এখনও পর্যন্ত আড়াই লক্ষেরও বেশি টাকা তুলে ফেলেছেন তিনি।

Add Comment